০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, বুধবার, ০২:৪৬:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হজে যেতে ৬ লাখ ৮৩ হাজার ১৮ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে বাংলা ভাষায় রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভোটকেন্দ্রের ভেতর থেকে ককটেল উদ্ধার হিরো আলমকে গাড়ি উপহার দিতে চান এক শিক্ষক, তবে হিরো আলমের দাবি তিনি গড়িমসি করছেন আঙুলের ছাপ না মেলায় ভোট না দিয়েই ফিরে গেলেন বৃদ্ধা কল্পনা রানী শঙ্কার মধ্যেই বগুড়া-৪ ও ৬ আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে ৬টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা, বিটিসিএল কর্মকর্তার মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বাগেরহাটের ইপিজেডের কারখানায় লাগা আগুন এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি দেশে ফিরছেন সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার রোজিনা
এবার যুক্তরাষ্ট্রে নিষিদ্ধ হচ্ছে টিকটক
সাইফুল ইসলাম মুন্না
  • আপডেট করা হয়েছে : ২০২২-১২-১৯
এবার যুক্তরাষ্ট্রে নিষিদ্ধ হচ্ছে টিকটক

জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটক এবার যুক্তরাষ্ট্রে আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে। মূলত জনপ্রিয় শর্ট ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম টিকটকের এই অ্যাপস এর মাধ্যমে চীনা সরকারের মার্কিন নাগরিকদের ওপর নজরদারি চালানোর অভিযোগ উঠেছে। এরপর যুক্তরাষ্ট্র সরকার মার্কিন নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

সম্প্রতি প্রকাশিত রিপোর্টে জানানো হয়েছে রিপাবলিকান মার্কো রুবিও, তার সহকর্মী মাইক গ্যালাঘের এবং ডেমোক্র্যাট রাজা কৃষ্ণমূর্তি টিকটিক নিষিদ্ধ করার আইন পাসের প্রস্তাব দিয়েছেন।

ফলে এই আইনের অধীনে চীন এবং রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে থাকা যেকোনো ধরনের সফটওয়্যার এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম মার্কিন নাগরিকদের জন্য ব্যবহার পুরোপুরিভাবে যুক্তরাষ্ট্রে নিষিদ্ধ করা হবে।

এক বিবৃতিতে রুবিও জানিয়েছেন, মার্কিন নাগরিকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে এবং যুক্তরাষ্ট্রের ভালোর জন্যই চীনের নিয়ন্ত্রিত জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম টিকটক নিষিদ্ধ করার এখনই সঠিক সময়। বাইডেন প্রশাসনের দিকে আঙ্গুল তুলে তিনি বলেন, টিকটক থেকে মার্কিন ব্যবহারকারীদের সুরক্ষিত করতে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

দীর্ঘদিন যাবৎ জনপ্রিয় শর্ট ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটকের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান  বাইটড্যান্সের বিরুদ্ধে চিনা সরকারের সঙ্গে মিলে বিভিন্ন দেশের ব্যক্তিদের ব্যক্তিগত তথ্য শেয়ার করার অভিযোগ উঠেছে।  

এছাড়াও এ সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় প্রকাশ হওয়ার পর বিশ্বের বেশ কয়েকটি পশ্চিমা দেশ নড়েচড়ে বসে।  যদিও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে চীনা টেক সংস্থাটি। 

২০২০ সালেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টিকটক নিষিদ্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। যদিও সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে গিয়েছিল চীনা সংস্থাটি। পরে আদালতের সিদ্ধান্তে সেই দেশে নিষিদ্ধ করার সম্ভব হয়নি টিকটক।

তবে সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের না এমন অভিযোগের জবাবে টিকটক কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে টিকটক কর্তৃপক্ষ কখনোই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবহারকারীদের তথ্য চিনা সরকারের সঙ্গে শেয়ার করেনি এবং কখনো করবো না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি সুরক্ষা দল ঠিক করে মার্কিন ব্যবহারকারীদের কোন তথ্য চীন থেকে কে দেখতে পাবেন।

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেওয়া এ পদক্ষেপের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে টিকটক কর্তৃপক্ষ এবং তারা দাবি করেছে যে এটি শুধুমাত্র রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। টিকটক বলছে, ‘কিছু কংগ্রেস সদস্য রাজনৈতিক কারণে টিকটক নিষিদ্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছেন। এই সিদ্ধান্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সুরক্ষায় কোনও উন্নতি করবে না।’

শেয়ার করুন