০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, বুধবার, ০২:৩৭:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে বাংলা ভাষায় রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভোটকেন্দ্রের ভেতর থেকে ককটেল উদ্ধার হিরো আলমকে গাড়ি উপহার দিতে চান এক শিক্ষক, তবে হিরো আলমের দাবি তিনি গড়িমসি করছেন আঙুলের ছাপ না মেলায় ভোট না দিয়েই ফিরে গেলেন বৃদ্ধা কল্পনা রানী শঙ্কার মধ্যেই বগুড়া-৪ ও ৬ আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে ৬টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা, বিটিসিএল কর্মকর্তার মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বাগেরহাটের ইপিজেডের কারখানায় লাগা আগুন এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি দেশে ফিরছেন সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার রোজিনা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের জেরে ২ শিশুকে হত্যা: ১ জনের মৃত্যুদণ্ড, ১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
ইউটিউব চ্যানেল হ্যাক হওয়া থেকে রক্ষা করার উপায়
সাইফুল ইসলাম মুন্না
  • আপডেট করা হয়েছে : ২০২২-১১-২৮
ইউটিউব চ্যানেল হ্যাক হওয়া থেকে রক্ষা করার উপায়

যে কোন ইউটিউব চ্যানেল হ্যাক হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক কোনো ঘটনা নয়। কেননা হ্যাকাররা আপনার ইউটিউব চ্যানেল তখনই হ্যাক করে যখন আপনি একটি জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেলের মালিক হয়ে যান। তাই যদি আপনার একটি জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল থাকে তবে জেনে রাখুন আপনি কখনোইহ্যাকিং এর বিক থেকে মুক্ত নন। বরং, আপনার চ্যানেল যত জনপ্রিয়, আপনার রিফও তত বেশি।

অতীতের বিশ্লেষণগুলো থেকে দেখা যায় একা কখনোই সাধারণ বা দুর্বল চ্যানেলগুলো হ্যাক করে না। তারা সবসময় জনপ্রিয় চ্যানেল অথবা যেসব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব এবং ভিউ বেশি থাকে সেসব চ্যানেল হ্যাক করে তাকে এবং এর মাধ্যমে তারা ইউটিউব চ্যানেলের মালিক কে বিপদে ফেলার চেষ্টা করে। অনেক হ্যাকার মজা করার জন্যে এটা করে, আবার কিছু হ্যাকার টাকা খাওয়ার জন্যে হ্যাক করে। এক্ষেত্রে তারা আপনার কাছ থেকে আপনার ইউটিউব চ্যানেল হ্যাক করার পর ক্রিপ্টোকারেন্সি বা অন্য কোনো মাধ্যমে টাকা দাবি করে থাকে। 

হ্যাকাররা আপনার ইউটিউব চ্যানেল যে উদ্দেশ্যে হ্যাক করে থাকুক না কেন অবশ্যই আপনি চান না আপনার ইউটিউব চ্যানেল টি হ্যাক হয়ে যাক। মনে রাখবেন আপনার ইউটিউব চ্যানেল রক্ষা করার জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে পারেন আপনি। কখনো আপনার ইউটিউব চ্যানেলের নিরাপত্তার দায়িত্ব অন্য কোনো ব্যক্তির হাতে তুলে দেবেন না কেননা এতে করে আপনার ইউটিউব চ্যানেল টির নিরাপত্তা ঘাটতি দেখা দিতে পারে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কি কি উপায় আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি হ্যাকারদের কাছ থেকে রক্ষা করতে পারবেন।

১. আমাদের ভেতরে অনেকেই আছে যারা ইউটিউব একাউন্ট খোলার পূর্বে একটি সাধারন পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে থাকেন। অনেক ব্যক্তি আছেন যারা নিজেদের ইউটিউব চ্যানেল খোলার পূর্বে পাসওয়ার্ড হিসেবেনিজের মোবাইল নাম্বার, কেউ তার জন্মদিনের সংখ্যা, কেউ নিজের প্রেমিক বা প্রেমিকার নাম, ইত্যাদি দিয়ে পাসওয়ার্ড সেট আপ করে থাকেন। শুধু তাই নয় এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় এই ধরনের পাসওয়ার্ড দেওয়ার প্রবণতা মানুষের ভিতরে সবচেয়ে বেশি। আর এতে করে সাইবার ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে কেননা হ্যাকাররা প্রথমে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে পাসওয়ার্ড হ্যাক করার চেষ্টা করে থাকে।

সুতরাং আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল টিভি হ্যাকারদের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য একটি শক্ত বা স্ট্রং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। আমাদের উপদেস হলো আপনি শুধুমাত্র ইউটিউব চ্যানেলের নয় আপনার অন্যান্য যেসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম রয়েছে যেমন ফেসবুক টুইটার আপনি একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন। যদি আপনার পাসওয়ার্ড মনে রাখতে অসুবিধা হয় তাহলে আপনি আপনার ব্যক্তিগত ডাইরিতে তা লিখে রাখুন।

কখনোই আপনি একাধিক প্ল্যাটফর্মের জন্য একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন না। আলাদা আলাদা প্ল্যাটফর্মের জন্য আলাদা আলাদা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করার অভ্যাস করুন। সবচেয়ে ভাল হয় একটা নোট প্যাডে নিয়ে সেটাকে গুগল ড্রাইভে সেভ করে রাখা।

২. যেকোনো একাউন্টের সুরক্ষা ব্যবস্থার অন্যতম একটি জনপ্রিয় এবং শক্তিশালী মাধ্যম হলো টু স্টেপ ভেরিফিকেশন। এ ধরনের টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন সিস্তেম মূলত আপনার মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

আপনি যখন আপনার একাউন্ট টু স্টেপ ভেরিফিকেশন সিস্তেম অন করে রাখবেন।  তখন কোন হ্যাকার যদি আপনার অ্যাকাউন্টটি হ্যাক করার চেষ্টা করে তাহলে সে কখনো সফল হতে পারবে না।  কেননা সে যতবার আপনার একাউন্টে লগইন করার জন্য পাসওয়ার্ড দিবে সেটা যদি সঠিক হয় তবু আপনার মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে একটি কোড আসবে।  আর একজন হ্যাকারের পক্ষে কখনো আপনার মোবাইলের কোডটি জানা সম্ভব নয় তাই সে কখনোই আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন করতে পারবে না

আপনার ইউটিউব চ্যানেল বা আপনার একাউন্ট হ্যাকারদের হাত থেকে রক্ষা পাবে। শুধু তাই নয় আপনার অ্যাকাউন্ট লগইন করার বারবার চেষ্টা করার কারণে অটোমেটিকলি তার ডিভাইস থেকে একাউন্ট লগ আউট হয়ে যাবে।

সুতরাং, আপনার ইউটিউব চ্যানেলকে সুরক্ষিত রাখতে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন সেট করে নিন।

৩. আপনি যদি আপনার অ্যাকাউন্টটি বিভিন্ন কারণে একাধিক মানুষের কাছে এক্সেস দিয়ে থাকেন তবে এখনই তা বন্ধ করে ফেলুন।

এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার যে আপনার চ্যানেলটির যথাযথ পরিচালনার জন্যে আপনি একাধিক লোককে অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস দিয়েছেন। কিন্তু এটা অত্যন্ত অবাভাবিক ব্যাপার যে আপনি আর কখনোই তাদের অ্যাক্সেস বন্ধ করেননি যারা এখন আর আপনার চ্যানেলের সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই।

কান এটা স্বাভাবিক ব্যাপার একাধিক লোকের কাছে অ্যাক্সিস থাকলে হ্যাকিং হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।  তাই আপনার উচিত প্রয়োজন ছাড়া অন্যান্য ব্যক্তি যাদের কাছে অ্যাক্সেস রয়েছে তা দ্রুত বন্ধ করে দেওয়া। 

তাই দেরি না করে আজই আপনার চ্যানেলের একসেস বন্ধ করুন বিশেষ করে তাদের যারা এখন আর আপনার চ্যানেলের জন্যে কাজ করছেন না। কিংবা কাজ করার দরকারও হচ্ছে না। হতে পারে, এক সময় তাঁরা আপনার বন্ধু ছিল, কিন্তু এখন আর বন্ধু নেই। কিংবা, এখনো বন্ধু আছে কিন্তু শত্রু হতে কতক্ষণ।  

৪. বন্ধু কিংবা হার্টের বাসায় বেড়াতে গিয়েছেন সমস্যা নেই যেতেও পারেন।  তবে মনের ভুলেও কখনো সেখানে থাকা কম্পিউটার বা অন্য কোন ডিভাইসে আপনার ইউটিউব চ্যানেল লগইন করবেন না। 

সাধারণত আমরা যখন আমাদের অ্যাকাউন্টে ইউটিউব চ্যানেলটি লগইন করি তখন লগ আউট করে থাকি না। তাই এটা আমাদের অভ্যাস হয়ে গিয়েছে যে কোন ডিভাইসে অ্যাকাউন্ট লগইন করার পর আল্লাহ না করার। তাই স্বাভাবিক এবং স্বভাবগত অভ্যাসের কারণে কারো ডিভাইস থেকে অ্যাকাউন্ট লগইন করার পর প্রায়ই আমরা লগ আউট করতে ভুলে যাই। হলে, যার ডিভাইস থেকে লগইন করা হয়। তার পক্ষে আমাদের অ্যাকাউন্টের অ্যাঞ্জেস পাওয়া সহজ হয়ে যায়।

৫.পেশা যখন আপনি কোন কিছু ব্রাউজ করবেন এবং যদি আপনার জিমেইলে কোন সন্দেহজনক মেইল এসে থাকে এবং তাতে কোন লিংক থাকে তবে অবশ্যই তা ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন। 

আপনার ইনবক্সে এমন কিছু ইমেল আসতে পারে যেগুলোতে আপনাকে কোনও লটারি জেতা কিংবা অন্য কোনও ভাল খবর দেয়া হয়। হতে পারে আপনাকে বলা হচ্ছে যে ফ্রিতে এক মিলিয়ন সাবক্রাইবার পেতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন।

এজাতীয় লিঙ্ক এ আপনি কখনই ক্লিক করবেন না। অবশ্যই এসব ইমেইল ঢাকা থেকে বিরত থাকুন। কারণ, এগুলোর সবই ফিশিং ইমেল, হ্যাকারদের টেকনিক।

শেয়ার করুন