০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, বুধবার, ০৪:২৫:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সুষ্ঠুভাবে ভোট হলে আমি দুই আসনেই বিপুল ভোটে জয়লাভ করবো, হিরো আলম বিদ্যুৎ খাতে সরকারের লুটপাটের মাশুল দিচ্ছে জনগণ, ফখরুল ফের শীত বাড়তে পারে, জানালো আবহাওয়া অধিদপ্তর সাগরে নিম্নচাপ সৃষ্টি, তাপমাত্রা কমতে পারে ১-৩ ডিগ্রি হজে যেতে ৬ লাখ ৮৩ হাজার ১৮ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে বাংলা ভাষায় রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভোটকেন্দ্রের ভেতর থেকে ককটেল উদ্ধার হিরো আলমকে গাড়ি উপহার দিতে চান এক শিক্ষক, তবে হিরো আলমের দাবি তিনি গড়িমসি করছেন আঙুলের ছাপ না মেলায় ভোট না দিয়েই ফিরে গেলেন বৃদ্ধা কল্পনা রানী শঙ্কার মধ্যেই বগুড়া-৪ ও ৬ আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে
ঢাকায় অনুষ্ঠিত সভায় খালেদা জিয়া যোগ দিলে আদালত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে
সাইফুল ইসলাম মুন্না
  • আপডেট করা হয়েছে : ২০২২-১২-০১
ঢাকায় অনুষ্ঠিত সভায় খালেদা জিয়া  যোগ দিলে  আদালত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে

বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক বক্তৃতায় বলেছেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বিএনপির গণসমাবেশে তারা যদি আইন-শৃঙ্খলা ভাঙার চেষ্টা করে তবে অবশ্যই তারা ভুল করবে এবং বিএনপি'র অনুষ্ঠিত সমাবেশে যদি খালেদা জিয়া অংশগ্রহণ করে তবে আদালত তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। 

উল্লেখ্য ঢাকার রাজার বাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে নারী-পুরুষের জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনের গৌরবময় যাত্রা অর্জনে - ১৯৭৪-২০২২’ শীর্ষক বার্ষিক প্রশিক্ষণ প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন। এসময় তিনি অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনার সময় বিএনপি'র অনুষ্ঠিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

যদি ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত বিএনপির সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অংশগ্রহণ করে তবে কি খালেদা জিয়ার জামিন বাতিল হবে কিনা? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানান, এ বিষয়ে আদালত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল সংবাদমাধ্যমকে বলেন, বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ কর্মসূচি হিসেবে আগামী ডিসেম্বর মাসে ঢাকা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এ বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে সরকারের কাছে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে একটি আবেদন করে। সমাবেশের জন্য তারা প্রথমে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এবং মানিক মিয়া অ্যাভিনিউ এর মধ্যে যেকোনো একটিকে অনুমতি দেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। পরবর্তীতে অবশ্য তারা বিএনপি'র প্রধান কার্যালয় নয়া পল্টনের সভা করতে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে পুনরায় আবার আবেদন করে। কিন্তু সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সব ধরনের গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হলো মানিক মিয়া এভিনিউ অনেক আগে থেকেই সর্বসাধারণের জন্য গণসমাবেশ করা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। তাই সকল ধরনের পরিস্থিতি বিবেচনা করে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী বিএনপিকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়। এছাড়াও জাতীয় সংসদ মানিক মিয়া এভিনিউ তে অবস্থিত হওয়ার কারণে এবং আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিবেচনা করে তাদেরকে মানিক মিয়া এভিনিউতে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়নি সরকার। ডিএমপি কমিশনার বিএনপির দাবি বিবেচনা করেই সমাবেশ করার জন্য সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দিয়েছেন। সেখানে ছাত্রলীগের কিছু অনুষ্ঠান ছিল। কিন্তু ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশের কারণে সেই অনুষ্ঠানগুলো এগিয়ে আনা হয়েছে। এসময় বিএনপি'র অনুষ্ঠিত সমাবেশে ঢাকা ও তার আশেপাশের জেলাগুলোর থেকে বিএনপির নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করবে এবং তারা যাতে শান্তিপূর্ণভাবে সভা-সমাবেশ করতে পারে সে জন্য এ ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে।

এসময় আগামী ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত বিএনপি'র সমাবেশ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সংবাদমাধ্যমকে আরো বলেন, আমরা আগে থেকেই বিএনপিকে বলে এসেছি আপনারা শান্তিপূর্ণভাবে আমাদের কর্মসূচি পালন করতে পারেন। তবে আপনারা কোন ভাবেই আইন-শৃংখলার ভঙ্গ করতে পারবেন না। আপনারা যদি আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেন চেষ্টা করেন তবে অবশ্যই কঠোর জবাব দেওয়া হবে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এমন একটি পর্যায়ে চলে গিয়েছে যে অকারণে আপনারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবেন তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কখনোই মেনে নেবে না।

উল্লেখ্য বিএনপি ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এবং মানিক মিয়া এভিনিউতে সভা-সমাবেশ করতে চেয়ে অনুমতি চায়। পরবর্তীতে তারা তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন নয়াপল্টনে সভা সমাবেশ করার অনুমতি চায়। এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের নয়াপল্টনে বিএনপি'র সমাবেশ করতে যাওয়ার বিষয়ে বলেন আপনারা সবাই জানে নয়াপল্টনের রাস্তা জাহান্নাম সম্পর্কে। তারা বলছে, কয়েক লাখ লোকের সমাগম হবে। আর তারা যদি রাস্তায় সমাবেশ করে তবে কী পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে সেটা আপনারাও ভালো জানেন। এসব বিষয় বিবেচনা করে আমরা তাদের জন্য একটি বড় জায়গার সমাবেশ করতে দেয়ার অনুমতি দিয়েছি। এখন যদি বিএনপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ না করে তবে সরকারের কিছু করার নেই। আমি শুধু বিএনপিকে স্পষ্ট করে একটি কথাই বলতে চাই যদি বিএনপি আইন শৃঙ্খলা ভঙ্গ করার চেষ্টা করে তবে অবশ্যই তারা ভুল করছে।

শেয়ার করুন